শুক্রবার , ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আর্জেন্টিনা
  5. ইউক্রেন
  6. ইরান
  7. খেলাধুলা
  8. চীন
  9. জবস
  10. জাতীয়
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দুর্ঘটনা
  13. দেশজুড়ে
  14. ধর্ম
  15. প্রবাস

সৌদি প্রবাসীর উপর সন্ত্রাসীদের নেক্কারজনক হামলা

প্রতিবেদক
admin
সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২৩ ১:২৪ অপরাহ্ণ

নুরুল আমিন

মক্কা প্রতিনিধি

কক্সবাজার,রামু থানার,অন্তর্গত অফিসের চর চরপাড়া এলাকায় দিন দুপুরে মৃত, জাফর আহমদের বাড়িতে সন্ত্রাসীদের অতর্কিত হামলা। মোহাম্মদ রশিদ (৪৩),পিতা,মৃত জাফর আহমদ,সাং- অফিসের চর, চর পাড়া, ১নং ওয়ার্ড, ফতেখাঁরকুল,ইউন,থানা-রামু, জেলা- কক্সবাজার। ভিকটিমঃ ০১। মোমেন রশিদ, পিতা- মৃত জাফর আহমদ, ০২। প্রবাসী সায়েম মোহাম্মদ, পিতা- ঐ ০৩। খদিজা বেগম, স্বামী- প্রবাসী হারুনুর রশিদ সর্বসাং- অফিসের চর, চর পাড়া, ১নং ওয়ার্ড, ফতেখাঁরকুল, থানা- রামু, জেলা-কক্সবাজার।

সন্ত্রাসীদের নাম ও ঠিকানা

১.আবুক্কর (৬০), পিতা- মৃত নুর আহমদ
২. নুরুল আমিন (৫০),
পিতা- (ঐ)
০৩। তাওহীদ কাদের মুরান (৩০),
পিতা- মৃত আবুল কাশেম,
০৪. নওশান হামলার ইসু (১৯),
পিতা- উসমান গণি
০৫. রাজিয়া আক্তার রাজু(৩৯)
স্বামী- আমিন,
০৬.ঝিনু আরা বেগম (৩৭),
স্বামী- উসমান গনী
সর্বসাং- অফিসের চর, চর পাড়া, ১নং ওয়ার্ড – রামু, জেলা- কক্সবাজার সহ আগ্যাতনামা ৩/৪ জন।

ঘটনার তারিখ ও সময় ১৩/০৯/২০১৩ ইং তারিখ দুপুর অনুমান ০২:৩০ ঘটিকার সময়। ঘটনাস্থল । রামু থানাধীন ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের চরপাড়া অফিসের চর। এলাকাস্থ বসতঘর। উপরোক্ত সন্ত্রাসীরা তাহাদের সহযোগী ভাড়াটিয়া ৩/৪ জন সন্ত্রাসীরা চিহ্নিত অতিশয় খারাপ, চাঁদাবাজ, দাঙ্গা-হাঙ্গামাকারী এবং ডাকাত প্রকৃতির লোক হয়। তাহারা দেশের প্রচলিত আইন কানুন কিছুই তোয়াক্কা করেনা। ভিকটিমদের বাড়ির সামনের সরকারি সড়ক ও জনপদের জায়গা ব্যবহার করিতে হইলে সন্ত্রাসীদেরকে ১৩ তারিখ ৫,০০,০০০/- (পাঁচ লক্ষ) টাকা চাঁদা দিতে হইবে বলিয়া দীর্ঘ দিন ধরে চাঁদা দাবী সহ বিভিন্ন ধরনের হুমকি ধমকি প্রদান করিয়া আসিতেছিল এবং ইতিপূর্বেও বিভিন্ন অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হইয়া চাঁদা দাবী করে বেশ কয়েকবার অস্ত্রের মহড়া দিয়ে ভিকটিমদের পরিবারের লোকজনদের ভয়ভীতি প্রদান করে আসছিল। তারই ধারাবাহিকতায় বিগত ১৩/০৯/২৩-ইং দুপুর অনুমান ০২:৩০ ঘটিকার সময় সন্ত্রাসীরা বে-আইনী জনতাবদ্ধ হয়ে একই উদ্দেশ্য সাধনের লক্ষ্যে বিভিন্ন ধারালো ও মারাত্মক অস্ত্রসস্ত্র সহ সজ্জিত হইয়া ভিকটিমদের বসতঘরের সামনে আসিয়া বাড়িঘর ভাংচুর সহ তাদের দাবীকৃত চাঁদা না দেওয়াতে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করিতে থাকে এবং ভিকটিমদেরকে ইট-পাটকেল মারিতে থাকে, যাহা মোবাইলফোনে ভিডিওতে স্পষ্ট পরিলক্ষিত করা যায়। সাথে সাথে ভিকটিম মোমেন রশিদ বের হইলে প্রধান সন্ত্রাস নেতা আবু বকর ছিদ্দিক তার হাতে থাকা লম্বা ধারালো কিরিচ দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ্য করিয়া স্বজোরে কোপ মারিলে উক্ত কোপ লক্ষ্যভ্রষ্ট হইয়া যা বাম গালের চোয়ালের উপরে ভাগে (কান বরাবর) পড়ে গুরুতর ভাঁজ কাটা সহ গভীর জখম হয়। ভিকটিম মোমেন রশিদ মাটিতে পড়ে গেলে সন্ত্রাস নুরুল আমিন তার হাতে থাকা ধারালো লম্বা দা ধারা হত্যার উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ্য করিয়া কোপ মারিয়া গুরুতর খুলি কাটা জখম করে। সাথে সাথে সংবাদ দাতা ভিকটিমের ভাই প্রবাসী সায়েম মোহাম্মদ, মোমেন রশিদ কে বাঁচাতে চেষ্টা করিলে, সন্ত্রাস নুরুল আমিন জোরে লাথি মারিয়া মাটিতে ফেলে দিয়ে বুকের বামপাশের দাঁয়ের কাঁধা দিয়ে উপর্যুপুরী আঘাত করে। ভিকটিম সায়েম ও মোমেনকে বাঁচানোর জন্য খদিজা এসে রক্ষার জন্য চিৎকার করিলে ৩নং সন্ত্রাস তাওহীদ কাদের মোরাদ তাহার হাতে থাকা অনুমানিক ৩/৪ ফুটের লম্বা রড দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে স্বজোরে মাথা লক্ষ্য করে বারি মারিয়া ভিকটিম সায়েমের মাথার তুলিতে মারাত্মক খুলি ফাটা জখম করে এবং ০৪নং আসামী নওশাদ হায়দার ইমু ০৫নং আসামী রাজিয়া বেগমের সহযোগীতায় ভিকটিম খদিজা কে ৪নং সন্ত্রাস হাতে থাকা রড ধারা হত্যার উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ্য করিয়া বারি মারিলে উক্ত বারি মাথার বাম পাশে কানের উপরেভাগে পড়িয়া রক্তাক্ত মারাত্মক পেটে যায় । পরবর্তীতে হামলাকারী সন্ত্রাসীরা তাদের পূর্ব পরিকল্পিত একই উদ্দেশ্য সাধনের লক্ষে ঘরবাড়ি ভাংচুর করিয়া সদ্য প্রবাস থেকে আগত ভিকটিম সায়েম এর রুমে প্রবেশ করে আলমিরার লক ভাঙ্গিয়া বিবাহের প্রস্তুতি হিসেবে গচ্ছিত রাখা ১০ ভরি ওজনের স্বর্ণের পাট চুরি করে সন্ত্রাস ০৭নং আসামী তাহমিদ কাদের রিয়াদ ০৬নং আসামী ঝিনু আরা’র সহযোগীতায় নিয়ে যায়। তৎসময়ে ভিকটিম সায়েম সকল ঘটনা নিজ চোখে দেখেছে এবং গোপনে ৯৯৯ এ ফোন করে। সকল সন্ত্রাসীরা এলাকার লোকজন ও সাক্ষীদের আগাইয়া আসিতে দেখিয়া এবং পুলিশ আসার খবর পেয়ে ভিকটিমদের মামলা মোকদ্দমা করিলে জীবনে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। উল্লেখিত স্বাক্ষী ও আত্মীয় স্বজনের সহযোগীতায় ভিকটিমদের রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়া যায়। ভিক্টিমদের গুরুতর আঘাত প্রাপ্ত হওয়ার রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করেন এবং ভিকটিমগণ চিকিৎসাধীন রয়েছে।
উল্লেখ্য যে, ভিকটিমের মেজ ভাই বাড়ির বাইরে থাকায় তিনি খবর পেয়ে তৎক্ষনাৎ রামু থানায় অভিযোগ দায়ের করতে গেলে ভাড়াকৃত কিছু সন্ত্রাসী তাহাকে ধাওয়া করে তৎমধ্যে তিনি রামু থানায় ঢুকতে সক্ষম হয়, দুঃখের বিষয় এই যে, সন্ত্রাসীদের টহলের কারণে তিনি রামু থানা থেকে বের হতে পারছিলেন না। ডিউটি রত গেটে পুলিশ থাকা সত্ত্বেও।
এই নেক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

সর্বশেষ - Uncategorized

আপনার জন্য নির্বাচিত

প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা দক্ষ হয়ে উঠছে ইংরেজি শিক্ষায়

ক্যান্সারের সাথে লড়ে যাচ্ছেন সহকারী শিক্ষিকা মুহসেনা আক্তার বেবি

মহেশখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণকারী কর্মকর্তাগনের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

জামালপুরের মেলান্দহ পৌরসভার কাউন্সিলর মমিনুলের লাশ উদ্ধার

জামালপুরের মেলান্দহ পৌরসভার কাউন্সিলর মমিনুলের লাশ উদ্ধার

ঠাকুরগাঁওয়ে পুকুরের পানিতে প্রাণ হারালো দুই ভাই

বিএনপি জামাত শক্তির রাজনীতির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্টিত হয়েছে

ভূল্লীবাধঁ পরিদর্শন করতে আসেন পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের সচিব

কক্সবাজার টুয়াকের কার্যকরি পরিষদের নিয়মিত সভা অনুষ্ঠিত

লামায় জাতীয় বিজ্ঞান মেলা উদ্বোধন করলেন এমপি বীর বাহাদুর

এখনো যে স্থানে থমকে দাঁড়ায় পথিক