সোমবার , ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আর্জেন্টিনা
  5. ইউক্রেন
  6. ইরান
  7. খেলাধুলা
  8. চীন
  9. জবস
  10. জাতীয়
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দুর্ঘটনা
  13. দেশজুড়ে
  14. ধর্ম
  15. প্রবাস

পেকুয়ায় ৩ ওয়ার্ডের সংযোগ সড়কেই খুলল সম্ভাবনার নতুন দূয়ার

প্রতিবেদক
admin
ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২৪ ৯:৫৬ পূর্বাহ্ণ

মোঃ জালাল উদ্দিন,পেকুয়া;
কক্সবাজারের পেকুয়ার উজানটিয়ার ৩,৪ ও ৮ নং ওয়ার্ডের সংযোগ সড়কেই বদলে দিলে যোগাযোগের মাধ্যম,খুলে গেল স্থানীয় ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত। স্থানীয় জনতার মাঝে বিরাজ করছে উৎফুল্লতার আমেজ। কৃষি জমি,লবণ মাঠ ও মৎস্য ঘেরের বিপুল আবাদী ভূমি এবং নারী-পুরুষ মিলে প্রায় ৮হাজারের অধিক জনসংখ্যা রয়েছে এ ওয়ার্ডগুলোতে। রয়েছে মাদ্রাসা,এতিমখানা,প্রাথমিক ও উচ্ছ বিদ্যালয়সহ শিক্ষা প্রতিষ্টান ও মসজিদ। সংযোগ সড়ক না থাকায় উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য মূল্য পেত না চাষীরা,ব্যবসায়ীরা করে রাখতো চাষীদের এক প্রকার জিম্মী। শিক্ষা প্রতিষ্টানে যেতে ছেলে-মেয়েদের পড়তে হতো ভোগান্তিতে। শিক্ষাবান্ধব সরকার তথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেয়া অপার সুযোগের ফলেও শিক্ষালয় থেকে ঝড়ে পড়তো অসংখ্য শিক্ষার্থীরা। স্বপ্ন ভেঙ্গে অভিভাবকেরা সন্তানদের নিয়ে অনিশ্চয়তায় দিন পার করতো। দেশ স্বাধীনের পর হতে আভ্যন্তরীণ নেতিবাচক রাজনীতির কারণে এ সড়কটির সংষ্কার কাজ হয়নি। গত ইউপি নির্বাচনে ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে জনতার প্রকৃত সেবক তোফাজ্জল করিমকে নির্বাচিত করার ফলে ঘুচলো হিংসাত্মক অবহেলা ও স্বেচ্ছাছারিতার অবসান। সংষ্কারে হাত দিলো একের পর এক সড়ক সংষ্কারের কাজে। দুই অর্থ বছরে প্রায় ৩ কিলোমিটার রাস্তাটি ব্যয় ১৫ লক্ষ টাকার মধ্যে অর্ধেক চেয়ারম্যানের নিজস্ব তহবিল ও পরিষদের তহবিল থেকে অর্ধেক অর্থ যোগান দেয়া হয়। বহু বঞ্চনার এ সড়ক সংষ্কার হওয়ায় স্বস্তি ফিরলো আবাল বৃদ্ধ-বনিতার মাঝে। উম্মোচিত হল অপার সম্ভাবনার নতুন ধার। চাষীরা তাদের উৎপাদিত মাছ,লবণ ও অন্যান্য পণ্য স্বল্প সময় ও খরচে পেকুয়া বাজারসহ অন্য যেকোন স্থানে নিয়ে যেতে পারবে। কমে আসবে উৎপাদন ব্যয় অর্ধেকে।
লবণচাষী আবদুল খালেক ও ইসমাঈল জানান,পশ্চিম উজানটিয়া হতে সাবেক মেম্বার রহিমের বাড়ির পাশ দিয়ে মধ্যম উজানটিয়া জৈনুদ্দিন পাড়া ব্রীজ পর্যন্ত সংযোগ সড়কটি নির্মাণ হওয়ায় স্থানীয় ব্যবসায়ীদের জিম্মীদশা থেকে মুক্ত হলাম। ৩,৪ ও ৮ নং ওয়ার্ডকে এ সড়কের মাধ্যমে সংযুক্ত করায় চেয়ারম্যান তোফাজ্জল করিম ভাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।
মৎস্যচাষী মোঃ হাবিব, শহিদুল্লাহ ও আবু বলেন, এতদিন আমরা মৎস্য ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মী ছিলাম। সংযোগ সড়কটি হওয়ায় আমরা এখন স্বাধীনভাবে মাছসহ অন্যান্য পণ্যগুলো সহজেই যে কাউকে বিক্রি করতে পারব। অন্য এলাকার ব্যবসায়ীরাও এখানে এসে পণ্য ক্রয় করতে পারবে। ফলে চাষীরা ন্যায্যমূল্য পাবে।
ইউপি চেয়ারম্যান তোফাজ্জল করিম জানান, স্বাধীনতা পূর্ববর্তি এটি যোগাযোগের মাধ্যম হিসাবে একমাত্র পথ ছিল।দেশের স্বাধীনতার পর আভ্যন্তরীণ রাজনীতির রোষানলে পড়ে এ রাস্তাটি সংষ্কার করেনি কেউ। আমি নির্বাচিত হওয়ার পর ৩,৪ ও ৮ নং ওয়ার্ডের জনগণ ও চাষীদের কষ্টের কথা চিন্তা করে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ের মধ্যে আমার নিজস্ব অর্থ অর্ধেক ও পরিষদের তহবিল থেকে অর্ধেক অর্থে বহু বছরের সংষ্কারবিহীন এ সড়কটি মাটিদ্বারা সংষ্কার করি। ইনশাআল্লাহ সবকিছু অনুকূলে থাকলে আগামী অর্থ বছরে ফ্লাট সলিংয়ের কাজ শুরুর করার আশা করতেছি।

সর্বশেষ - Uncategorized