বৃহস্পতিবার , ৯ মে ২০২৪ | ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আর্জেন্টিনা
  5. ইউক্রেন
  6. ইরান
  7. খেলাধুলা
  8. চীন
  9. জবস
  10. জাতীয়
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দুর্ঘটনা
  13. দেশজুড়ে
  14. ধর্ম
  15. প্রবাস

প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচন, কী বলছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা

প্রতিবেদক
admin
মে ৯, ২০২৪ ১১:৫৯ পূর্বাহ্ণ

শেষ হয়েছে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপ। এতে ১,৬৩৫ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৫৭০, ভাইস চেয়ারম্যান ৬২৫ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪৪০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির ছাড়াও নির্বাচনে বিএনপির বহিষ্কৃত অন্তত ৮ জন নেতা জয়ী হয়েছেন।

এছাড়া কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় চেয়ারম্যান পদে ৮ জন, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১০ জন করে মোট ২৮ জন প্রার্থী আগেই বিজয়ী হয়েছেন।

২০১৯ সালে পঞ্চম উপজেলা নির্বাচন প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে হয়। সেসময় ভোট বর্জন করেছিলো বিএনপিসহ সরকার বিরোধীরা। সেই নির্বাচনে ভোট পড়েছিলো ৪১ শতাংশের বেশি। এর আগে ২০১৪ সালে চতুর্থ উপজেলায় ৬১ শতাংশ, ২০০৯ সালে তৃতীয় উপজেলা নির্বাচনে ভোট পড়ে প্রায় ৬৮ শতাংশ। এই দুটি নির্বাচনে অংশ নেয় বিএনপি এবং তাদের মিত্ররা।

ষষ্ঠ উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপে কম ভোটের রেকর্ড হয়েছে। তবে ভোটের দিন বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, সহিংসতা হলেও বড় কোনো ঘটনা ঘটেনি। এতেই স্বস্তি নির্বাচন কমিশনের (ইসি)।

কেমন হলো এবারের উপজেলা ভোটের প্রথম ধাপ

এদিকে প্রথম ধাপের উপজেলা ভোটের পরিবেশ স্বস্তিদায়ক ছিলো বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, বিএনপির ভোটে না আসা, সরকারের ক্ষমতার পরিবর্তন না হওয়াসহ নানা কারণে ভোটার উপস্থিতি কম ছিলো। তবে বিএনপির ভোট বর্জন নিয়েও সমালোচনা করেছেন তারা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ এস এম আমানুল্লাহ বলেন, ভোটের পরিবেশ স্বস্তিদায়ক হয়েছে আগের তুলনায়। স্থানীয় সরকার নির্বাচন জাতীয় নির্বাচনের মতো না। সেখানে প্রতিযোগিতা অনেক বেশি হয়। নেতার সংখ্যাও থাকে অনেক বেশি। সে জায়গায় নির্বাচন কমিশনের একটু ঘাটতি দেখা যাচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সাব্বির আহমেদ বলেন, জাতীয় নির্বাচনের মাত্র চার মাসের মাথায় ভোট হওয়ায় ভোটারদের উপস্থিতি কম হওয়া স্বাভাবিক। পাশাপাশি বিএনপির ভোটে না আসাও ভোটারের হার কমে যাওয়ার আরেকটি কারণ।

তিনি আরও বলেন, দলের অভ্যন্তরীণ নেতাকর্মীরা যেন সহিংসতায় জড়িয়ে না পড়ে, সেক্ষেত্রে হয়তো তারা (নির্বাচন কমিশন) সফলতা পেয়েছে। তবে ভোটারদের মধ্যে আগ্রহ অনেকখানি কমে গেছে।

বিএনপির ভোট বর্জন নিয়ে ঢাবির এই অধ্যাপক বলেন, ‘নির্বাচন বর্জন করে কখনো রাজনীতিতে টিকে থাকা যায় না। প্রতিকূল পরিস্থিতির বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে। রাজনীতি হলো একটা যুদ্ধের জায়গা, এখানে ফাইট করতে হবে।’

এদিকে ২১ মে ১৬০ উপজেলায় হবে দ্বিতীয় ধাপের ভোট। এ নির্বাচনে মোট ২০৫৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

সর্বশেষ - Uncategorized

আপনার জন্য নির্বাচিত

শাপলাপুরে পুলিশের অভিযানে অস্ত্রসহ সন্ত্রাসী শাহাব উদ্দিন গ্রেফতার

৩০ পারা কোরআন শরিফ হাতে লিখলেন সীতাকুণ্ডের তাহসিন

রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে আরসার ৪ সদস্য আটক

কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ রোডে প্রথমবারের মতো যাত্রা শুরু করলো ছাদখোলা দ্বিতল ট্যুরিস্ট বাস

মিরসরাইয়ে ফুটবলের ফাইনালে মারুফ মডেল বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন

লামায় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উদ্বোধন হল

মহেশখালীতে শ্রী শ্রী জন্মাষ্টমী উদযাপনের লক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত

শিক্ষার আলো ঘরে ঘরে জ্বালো এই স্লোগান নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে আক্কেলপুর

জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতায় মারুফ মডেল প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয় সেরা

পেকুয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-ড. সজীবকে সমর্থন করে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে দাঁড়ালেন গিয়াস উদ্দিন